মেনু নির্বাচন করুন

ছবি
শিরোনাম
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
বিস্তারিত

* বাংলাদেশেরে পতাকা আয়তাকার
* এর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থের অনুপাত ১০:৬ এবং মাঝের লাল বর্ণের বৃত্তটির ব্যাসার্ধ দৈর্ঘ্যের পাঁচ ভাগের এক ভাগ, পতাকার দৈর্ঘ্যের কুড়ি ভাগের বাম দিকের নয় ভাগের শেষ বিন্দুর ওপর অঙ্কিত লম্ব এবং প্রস্থের দিকে মাঝখান বরাবর অঙ্কিত সরল রেখার ছেদ বিন্দু হলো বৃত্তের কেন্দ্র।
* পতাকার দৈর্ঘ্য ১০ ফুট হলে প্রস্থ হবে ৬ ফুট, লাল বৃত্তের ব্যাসার্ধ হবে ২ ফুট, পতাকার দৈর্ঘ্যের সাড়ে ৪ ফুট ওপরে প্রস্থের মাঝ বরাবর অঙ্কিত আনুপাতিক রেখার ছেদ বিন্দু হবে লাল বৃত্তের কেন্দ্রবিন্দু।

পতাকা ব্যবহারের মাপ :

* ভবনে ব্যবহারের জন্য পতাকার বিভিন্ন মাপ হলো—১০ ফুট ৬ ফুট, ৫ ফুট ৩ ফুট, ২.৫ ফুট ১.৫ ফুট।
* মোটরগাড়িতে ব্যবহারের জন্য পতাকার বিভিন্ন মাপ হলো—১৫ ইঞ্চি ৯ ইঞ্চি, ১০ ইঞ্চি ৬ ইঞ্চি।
* আন্তর্জাতিক ও দ্বিপাক্ষিক অনুষ্ঠানে ব্যবহারের জন্য টেবিল পতাকার মাপ হল—১০ ইঞ্চি ৬ ইঞ্চি।

পতাকার ব্যবহারবিধি

* জাতীয় দিবসে সরকারি ও বেসরকারি ভবন, বাংলাদেশ কূটনৈতিক মিশন ও কনস্যুলেটে পতাকা উত্তোলন করতে হবে।
* শোক দিবসে পতাকা অর্ধনমিত থাকবে। পতাকা অর্ধনমিত রাখার ক্ষেত্রে প্রথমে পতাকা শীর্ষস্থান পর্যন্ত ওঠাতে হবে। তারপর অর্ধনমিত অবস্থানে রাখতে হবে। দিনের শেষে পতাকা নামানোর সময় পুনরায় শীর্ষস্থান পর্যন্ত উঠিয়ে তারপর নামাতে হবে।
* সরকার অনুমতি ব্যতীত জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা যাবে না।
* জাতীয় পতাকার ওপর কিছু লেখা অথবা মুদ্রণ করা যাবে না। এমনকি কোনো অনুষ্ঠান উপলক্ষে কিছু আঁকা যাবে না।

আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্যঃ

* বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা সর্বপ্রথম আনুষ্ঠানিকভাবে উত্তোলন করা হয় ২৩ মার্চ, ১৯৭১।

* যেসব দিবসে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়-স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস, বিজয় দিবস, বিপ্লব ও সংহতী দিবস, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ঘোষিত অন্য যে কোন দিবসে।

* বাসভবন, নৌযান, গাড়ি এবং বিমানে রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা ব্যবহার করতে পারেন।

* বাংলাদেশে ১৫টি মর্যাদাসম্পন্ন পদে অধিষ্ঠিত ব্যক্তির বাসভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। মর্যাদাসম্পন্ন পদগুলো হচ্ছে- রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, প্রধান বিচারপতি, মন্ত্রী, চিফ হুইপ, ডেপুটি স্পিকার, বিরোধীদলের নেতা, মন্ত্রীর মর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তি, প্রতিমন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তি, উপমন্ত্রী, উপমন্ত্রীর মর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তি, বিদেশে বাংলাদেশের কূটনীতিক এবং তিন পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান।

* বাংলাদেশে ১০টি মর্যাদাসম্পন্ন পদে অধিষ্ঠিত ব্যক্তিরা গাড়ি বা জলযানে জাতীয় পতাকা ব্যবহার করতে পারেন। মর্যাদাসম্পন্ন পদগুলো হচ্ছে- রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, প্রধান বিচারপতি, মন্ত্রী, বিরোধীদলীয় নেতা, চিফ হুইপ, ডেপুটি স্পিকার, মন্ত্রীর মর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তি, এবং বিদেশে বাংলাদেশের কূটনীতিক।

[ আপনি পড়ার পর যদি মনে করেন এই বিষয়গুলো অন্যদেরও জানা উচিত তবে অবশ্যই শেয়ার করবেন।